Md. Masood Imran Associate Professor, Department of Archaeology

Research Interest

Critical Theories and Archaeology, Landscape Archaeology, Gender Archaeology, Folklore Archaeology, Computer in Archaeology (Specially AutoCAD, Adobe Illustrator, GIS and Remote Sensing in Archaeology etc.), Quantifying Archaeology, Community Archaeology

Conference Papers

Journals Papers

Keeping Alive the Sultanate Past of Bangladesh by Using 3D Modelling and Virtual Reality as Tools for Assisting Archaeology and Generating the Predictive Models of World Cultural Heritage Sites— The Case Study of Town and Mosques of Shait Gumbad Mosque Re

Eventalisation of the past always poses a challenge for archaeologists. Usually archaeological record-based imagination helps them (archaeologist and reader) to understand the reality. This sort of imagination has a common structure but with various differences. These differences always generate a temporal-hyper-real situations. It is a very common practice in archaeological research. Logical prediction of the past and visibility of the past are the ultimate goal of this paper. A useful contribution to archaeological research, especially to the study of architectural history is the aim of this paper. Its purpose is to create a series of methods and tools for testing and analyzing theories and predictions for historical consequences through the use of3D modeling tools and virtual reality engines. In fact, this paper describes the research, investigation and application of computational modeling to the virtual generation of predictive 3D model of Sultanate periodtown Khalifatabad, Bagerhat, Bangladesh.

Beyond Anecdotalism: Questing about Ulugh Khan Jahan, founder of world heritage of Saith Gumbad Mosque, Bangladesh from the dominating Historical and Archaeological Account

This paper can be considered as a primary initiative to spell out the identity debate of Ulugh Khan Jahan. However, this paper is failed to make the answer the ultimate question: who was Ulugh Khan Jahan?

Revitalize the Past Structure: Examine the Architectural Conservation of Ahsan Manzil Palace, Dhaka, Bangladesh

In the context of archaeological practice of Bangladesh, to prove the essentiality of architectural conservation for archaeology and archaeologist is the ultimate notion of this paper. For this purpose, architectural conservation of Ahsan Manzil, Dhaka, Bangladesh has been examined in this paper. Methodologically, visual and specific parameters like whirling hygrometer, photometer survey master and chemical analysis used to measure humidity, dampness and salinity. Different aspects of bio-deterioration including identification of biological agents and their control in Ahsan Manzil Museum were investigated in the environmental perspective of Bangladesh. This paper examined that the authenticity of conservation work of Ahsan Manzil and to reveal the architectural conservation in the view of archaeolgy. 

Quantifying the Spatial Pattern of Medieval Urban Space of Khalifatabad, Bangladesh

A standard-measurement outline for the spatial analytical technique to fix up the standard of medievalage town is lacking in the subcontinent (India) and particularly in Bangladesh. Quantitative analytical techniquewas introduced to estimate the space of the town of Khalifatabad. Considering the present administrative unit (e.g.upazilla, mouza, etc.) as a primary reference, the study area is geometrised and uniform (e.g. quadrates, transects,etc.) with the help of GIS technology to locate archaeological exhibits and to understand the urban space ofKhalifatabad. Spatial analysis technique applied to Khalifatabad to find out the distribution of monuments andits mean centre, weighted mean centre, nearest neighbour analysis, median centre and distribution of monumentsdisposition. In this paper, the above spatial analysis calculated that the centre point of the Khalifatabad town isthe mausoleum of Ulugh Khan Jahan and measured the nearest neighbour which cleared that the archaeologicalrecords was not developed in clustered way. So the paper concludes that the Khalifatabad town was developed in aplanned way according to the contemporary human activities.

We can protect our past?: Re-thinking the dominating paradigm of preservation and conservation with reference to the world heritage site of Somapura Mahavihara, Bangladesh

The dominating concepts and practices of preservation and conservation of heritage in Bangladesh take autonomous and self-conscious agency for granted. This notion of agency has a genealogy in the history of the translation of various concepts by the modernizing and secularizing projects in Bangladesh under both colonialist and nationalist regimes of modern power. The points of application of modern power include the domain of the past and its discursive formations such as heritage, history, property, and archaeology. We attempt to understand the transformation of the conditions and structures in which the response to particular forms of narratives - in this case, of heritage and the past and actions by different parties - is shaped and reconfigured. This article focuses on the world heritage site of Somapura Mahavihara as the frame of reference and negotiates the data collected from the ethnography of people and practices around the site.

Folklore-archaeology of Wari-Bateshwar: An Interpretation of the Landscape and Settlement Pattern in Respect to Natural and Cultural Features of Toponym

Archaeologists acquire ideas, images and knowledge of the past through material remains. Recently, the development of archaeological practice, finds new crevice to understand toponym; the past and its meaning. Past cultural and geophysical features of landscape are expressed through place-names given by local people. Toponyms often survive as evidence, which could be a primary tool to trace the early settlement and culture of certain locality. The toponyms in Bangla, such as, Khal, Beel, Bazar, Tek, Ganj are the expression of some historical information of an area. For example, Koira Khal is a name of a canal in the vicinity of Wari-Bateshwar, which shows that there was a Khal (canal) in the past, but do not visible at present in the dry season. This research is intended to approach the Folklore-Archaeology which is the new discourse in the field of archaeological studies. The birth of this field is basically connected to the changes and transformation of the present ideas with that of the archaeology and the past.

বাংলাদেশ জাতীয় জাদুঘর-এর ১৭ ও ১৮ নম্বর গ্যালারিতে প্রত্ন-প্রতিমার ‘রেপ্রিজেন্টেশন’: একটি পর্যালোচনামূলক বিশ্লেষণ

আমরা ২০ জন নিরাভরণ নারীকে কোনো প্রকাশ্য স্থানে দাঁড় করিয়ে রাখতে পারি না কিন্তু বাংলাদেশ জাতীয় জাদুঘরে আইকোনোগ্রাফি গ্যালারিতে ২০ জন নিরাভরণ প্রত্ন-প্রতিমাকে দাঁড় করিয়ে রাখতে পারি; উন্মুক্ত করে দিতে পারি। প্রশ্ন করতে হবে এই ধরনের রেপ্রিজেন্টেশন প্রক্রিয়ার উদ্ভবের কারণ ও পরিস্থিতিকে এবং ব্যাখ্যা করতে হবে তার মাধ্যমে দর্শকের কাছে কী নির্মিত হচ্ছে? এ-হচ্ছে নারীর ওপর পুরুষের ক্ষমতার জাদুঘরীয় স্মারক; উদ্ভট, প্রেক্ষিতহীন অবস্থায় দাঁড়িয়ে থাকা। তারা ’যক্ষ্মী’, ’লক্ষ্মী’র প্রত্ন-প্রতিমার মাধ্যমে আসলে কী শিক্ষা আমাদের দিতে পারে বা দেয় সেটা যেমন গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্ন তেমনি গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্ন হলো এদেরকে কেনো এভাবে দাঁড় করিয়ে রাখতে হয়? কোন সমাজে এই প্রয়োজনীয়তা উদ্ভূত হয়, কখন, কীভাবে? এটা কী মানব প্রগতির অংশ না উপনিবেশ ও আধুনিকতাবাদী প্রকল্পে সাব্জেক্টের যে ক্রম রূপান্তরের ইতিহাস, ধ্বংসের ইতিহাস তার অংশ? বাংলাদেশের কোনো প্রান্তিক অংশে প্রাপ্ত শিবলিঙ্গকে কেনো জাদুঘরে রাখতে হয়? জাদুঘরের চার-দেয়ালে অন্যসব প্রত্নবস্তুর মধ্যে এর নতুন কোনো অর্থ নির্মিত হয়? প্রতিদিন অগণিত দর্শক যখন একে দেখে তখন তার সম্পর্কে কী ধারণা তৈরি হয় বা তারা পায় বা নেয়? জাদুঘরে শিব লিঙ্গের আদৌ যেভাবেই যত পরীক্ষিত উপায়েই প্রদর্শন করা হোক না কেনো তা আসলে কি তার প্রাক জাদুঘরীয় পরিচয়কে তুলে ধরতে পারে? 

Religious and Auspicious Symbols Depicted on Artifacts of Wari-Bateshwar

Symbols play a significant role to assume the religious beliefs. In this article we have discussed some of the artifacts of Wari-Bateshwar, which bear certain kinds of symbols. We assume that these symbols are quite significant in terms of socio-religious aspect of this site. The artifacts from the site that bear symbols are an amulet, punch-marked coins, querns, knobbed wares and a ring stone. The amulet is a very significant ritual object with the image of a tribal war-god (?) placed on the mouth of a pitcher and two votaries depicted on it. The religious belief that is reflected by the amulet is the idea of Bhakti to a personal god with offerings. The presence of solar symbol and six-armed symbol on the punch-marked coins represent the Sun God—Surya. And the mountain symbol with a crescent above on the punch-marked coins may typify the aniconic representation of Siva. The quern with svastika and nandipadas depicted on it might have religious values. If we are to make any inference about the religious beliefs of the Wari-Bateshwar people from those symbols depicted on this quern, then it indicates the prevalence of ‘Hinduism’. The ring stone has also some religious connotations, and then another aspect of their (or some of them) religious belief system may be provided by the ring stone. From the present study we do not find out the presence of Buddhism in Wari-Bateshwar culture.

Interpreting the Landscape of Wari-Bateshwar: An Interrogation using GIS and Remote Sensing

In the recent archaeological practice, landscape plays a very important role to understand the past human activity within a framework of reciprocal interrelationship. Landscape presented wide range of opportunities and constraints to different cultural activities of past people. That is why; landscape archaeology provides huge extent of data and as well as analytical tools to go beyond the diffusionist inferences. The development of some revolutionary scientific techniques like GIS and Remote Sensing have provided a very sound and substantial meaning not only to explain empirical data but also in the prediction of past human behavior. In this paper, GIS and Remote Sensing have been applied to interpret landscape of Wari-Bateshwar in relation to the past and its signatures. An attempt has been made here to understand the functional advantages and disadvantages for human groups to conduct their cultural activities in this particular location. This paper, moreover, deals with a critical investigation into the hitherto postulated inferences on Wari-Bateshwar.

Genealogy of Archaeological Surveying in Bangladesh: Delineating Peter Haggett’s systematic ground survey with the modification by GIS in Khalifatabad, Bagerhat

The methods, technique and actions for detecting, recording and interpreting various spatial aggregates of artefacts are known as Archaeological prospection in the dominating ideas and practice of archaeology. As a result, since the birth of Archaeology as a discipline of social science, ‘survey’, specially the prospection in archaeology, has been synonymous to archaeological research. In the context of Bangladesh archaeology, same fashion has been followed with some distortions. However, most of those surveys would not be mentioned as a systematic survey by me. In this paper, a survey model for 'medieval' archaeological evidences with their context has been proposed and applied. The model is very easy to manipulate for understanding medieval town plan through digital technologies. The proposed systematic survey model of this research is geometrised and uniformed (e.g. quadrates, transects, etc.), considering the present administrative unit (e.g. upazilla, mouza, etc.) as a primary reference. For understanding the spatial distribution pattern of the town plan of Khalifatabad, Heggett’s systematic ground survey sampling strategies were modified by GIS technology. It helped systematically to draw out the tentative town plan. Besides, this systematic survey has helped to collect the regional data that have been used to quantify statistically the town plan in detail. As a result of the proposed systematic survey, a predictive model of the town plan of Khalifatabad is developed and presented as an outcome of the paper.

Books

‘বাঙালিত্ববাদ’: জাতীয়তাবাদী ইতিহাস-রচনার রাজনীতি

মূল ধারার ইতিহাস-রচনায় কেন্দ্রে থাকে রাজা-রাজড়া বা রাষ্ট্রনায়কদের গল্প। পুরুষদের বীরগাথা। প্রবল জাতির কেচ্ছা। বাংলাদেশের বাঙালি ১৯৫২ থেকে শুরু করে দীর্ঘ সংগ্রামের ভেতর দিয়ে ১৯৭১-এর মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে একটি প্রবল জাতি হিসেবে আবির্ভূত হয়েছে। এ জাতি প্রতিনিধিত্বশীল জ্ঞান-চর্চাকারী হিসেবে নানা প্রতœতাত্ত্বিক গবেষণার মাধ্যমে অতীত সংস্কৃতি জানার চেষ্টা করে যাচ্ছে। কিন্তু হতাশ হতে হয় যখন গবেষকদের একেবারেই ভাবতে দেখা যায় না, যে ইতিহাস/সংস্কৃতি খোঁজা হচ্ছে তা কাদের ইতিহাস? এই ইতিহাসে ‘বাঙালি’ ব্যতীত অন্য জাতির অবদানের কথা কি উল্লিখিত হয়েছে বা হচ্ছে? গত সত্তর-আশি বছর ধরে রচিত ‘বাঙালি’ জাতীয়তাবাদী ইতিহাস আরসব জাতিকে উধাও করে দেয়ার জ্ঞানতাত্ত্বিক যুক্তি গড়ে তুলতে বিশেষ ভূমিকা পালন করেছে, এবং করে চলেছে। ‘জাতীয়তাবাদ’ কিভাবে ইতিহাস-রচনার গতিপথকে অধিপতি জাতির বীরত্ব গাথার ভয়ংকর পথে পরিচালিত করে তা পর্যালোচিত হয়েছে বর্তমান লেখার সমগ্রটা জুড়ে।

বাংলাদেশের প্রত্নতাত্ত্বিক ঐতিহ্য মহাস্থানগড়ের জন-প্রত্নতত্ত্ব : আধিপত্যবাদী প্রত্নতত্ত্ব চর্চার পর্যালোচনামুলক বিশ্লেষণ

মহাস্থানগড়ে বসবাসকারী জনসাধারণের মধ্যে রাষ্ট্রে র পৃ ষ্ঠপোষকতায় এক অবিশ্বাস দীর্ঘ দিন ধরে গজিয়ে উঠেছে। এর পাশাপাশি জাতীয়তার পরিচয়ে বার বার বদল এবং বিভ্রান্ত কর ধর্মনির্ভ র ৪৭-এর দেশ ভাগ এমন এক বিভ্রান্তি মূলক পরিচয় নির্মাণ করেছে যেখানে সহজেই জনগোষ্ঠী বিচ্ছিন্নহয়ে পড়ছে শেকড় থেকে, আর শক্র ভাবছে নিজ ভাষাগোষ্ঠীর অন্যান্য ধর্মাবলম্বীদের। এসব কারণে এ এলাকার মানু ষ সোনা-রু পার তথাগুপ্তধনের খেঁাজে নিজের বাড়ির আঙিনা থেকে শুরু করে রাতের আঁ ধারে খঁু ড়ে চলেছে বড় বড় ঢিবি এবং প্রাপ্ত প্রতিমা মূর্তি কে সাজিয়ে রাখার দামি পুতলা ভিন্ন অন্য কিছু ভাবতে ব্যর্থ হচ্ছে। রাষ্ট্রজাতীয় ঐতিহ্য রক্ষা ও বিশেষণের জন্য যে প্র তিষ্ঠানটিকে সরকারি দায়িত্বদিয়ে রেখেছে তারা পশ্চিমা পদ্ধতিতে এজেন্সি
বিচ্ছিন্নহয়ে এমন এক প্রত্নতাত্ত্বিক কর্ম কাণ্ড পরিচালনা করছেন যেখান থেকে স্থানীয় জনসাধারণ বিচ্ছিন্নহয়ে পড়েছেন এবং জাতীয় ঐতিহ্য রক্ষার চেয়ে সোনা-রুপা খঁুজতেই উজাড় হয়ে যাচ্ছে অতীত সম্পর্কে খেঁাজখবর পাবার বহু উপাদান। স্থানীয় মানু ষ এখনও বিশ্বাস করেন এবং কখনও কখনও দেখতে পান বলে দাবি করেন যে, গড়ের অর্থাৎ দু র্গএলাকার মধ্য স্থানটি রাতের বেলা জ্ব লজ্ব ল করে কারণ এর মাটির নীচে চাপা পড়ে আছে মহামূ ল্যবান গুপ্তধন। আমার বর্ত মান প্র বন্ধের অন্যতম কেন্দ্র ীয় প্র শ্নটি হচ্ছে, বর্ত মানে যে জ্ঞানতাত্ত্বি ক কাঠামোর ওপর দঁাড়িয়ে আজকের প্র তœতত্ত্বচর্চ া চলছে এবং অতীত ইতিহাস জানার কায়কারবার সরকারি নিয়ন্ত্র ণে চলছে তা কী আমাদের অতীতের ইতিহাসের কাছে পেঁ ৗছে দিতে সমর্থহবে? আর যে পদ্ধতিটি আজ অনু দিত হচ্ছে আজকের বিভিন্নপ্র তিষ্ঠানের অধীনে প্রশিক্ষিত, অভিজ্ঞায় অর্জি ত ও প্র শিক্ষণের নামে অতীত ইতিহাস খেঁ াজাএবং তা থেকে অতীতের ধারণা নির্ম াণ, তাকে জন বিচ্ছিন্নহয়ে বড় রকমের উলম্ফনের মধ্য দিয়ে যে প্রন্ততাত্ত্বিক চর্চা চলছে তাকে যদি আধিপত্যবাদী চর্চা বলে উল্লেখ করার মধ্য দিয়ে ব্যর্থহওয়ার আশংকা প্রকাশ করি তবে তা কী আমার জন্য বড় ভুল হিসেবে প্রতীয়মান হবে?

ক্রিটিক্যাল তত্ত্বচিন্তা

সমকালীন ইংরেজি ভাষাভাষি দুনিয়ায় বিষয়ভিত্তিক হ্যান্ডবুক অসম্ভব জনপ্রিয়তা অর্জন করেছে। কোনো নির্দিষ্ট শাস্ত্র বা বিষয়বস্তু অথবা ধারণাবলি সম্পর্কে বিবিধ ও বিচিত্র অভিব্যক্তি ও বিশ্লেষণভঙ্গির পরিচিতিমূলক বা পর্যালোচনামূলক পাঠ এ-ধরণের গ্রন্থে অন্তর্ভূক্ত হয়। সমাজবিজ্ঞানের বিভিন্ন শাখায় আগ্রহী শিক্ষার্থী-গবেষক-চিন্তকদের কাছে এই জাতীয় বইয়ের জরুরিত্ব ও সমাদর এখন মোটামুটি সর্বজনবিদিত। অথচ বাংলাভাষায় এ-ধরনের বই হাতে গোনা।


বইটি সমকাল সম্পর্কে চিন্তাশীল পাঠকদের প্রাথমিক প্রয়োজন ও আগ্রহ পূরণে সমর্থ হবে। এই সময়ে দুনিয়ায় প্রধান প্রধান বিতর্কগুলো যে-সব চিন্তাকে কেন্দ্র করে সংগঠিত হচ্ছে সেগুলোর পাশাপাশি মৌলিক কিছু চিন্তা-যেগুলো চিন্তার পদ্ধতিকে অনুধাবন করার জন্য দরকারি-এই বইয়ে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। বইটি সমাজবিজ্ঞানের শিক্ষার্থী-গবেষকদের যেমন উপকারে লাগবে, তেমনই চিন্তাশীল সিরিয়াস পাঠকদের পরিচিতিমূলক ধারণা দিতে কাজে আসবে।

মানচিত্রে বাংলার ইতিহাস

মানচিত্রের নির্দেশনা ইতিহাস পাঠকে অনেক সহজ এবং বোধগম্য করে তোলে। বাংলাদেশের ইতিহাস চর্চায় সংকট রয়েছে। সমকালীন গ্রন্থ না থাকায় প্রাচীন ও মধ্যযুগের ইতিহাস খুব স্পষ্টভাবে উপস্থাপিত হয়নি। অনেক ক্ষেত্রে অস্পষ্টতা থাকায় পাঠকের কাছে খুব স্বচ্ছ হয়ে ওঠে না। শিক্ষক ও শিক্ষার্থী থেকে শুরু করে সাধারণ পাঠক সকলেই এই জটিলতা থেকে বেরিয়ে আসতে চান। ’মানচিত্রের বাংলার ইতিহাস’ এই জটিলতা মুক্তির একটি সোপান হতে পারে। অনেক নিষ্ঠার সাথে ইতিহাসের সহজ উপস্থাপনা এবং রঙিন মানচিত্রে তা বাঙময় করে তোলা হয়েছে।

Patterns in the medieval urban space of Khalifatabad, Bangladesh: Spatial analyses of archaeological records with a proposed surveying model

"A standard-measurement outline for the spatial analytical technique to fix up the standard of medieval age town is lacking in the subcontinent (India) and particularly in Bangladesh. Following Haggett’s (1977) systematic ground survey, a survey model has been proposed to explore the town plan of Khalifatabad (the present study area). In additions, Quantitative analytical technique was also introduced to estimate the space of Khalifatabad town. It should mentioned here that this type of survey in at an elementary phase in Bangladesh.
Considering the present administrative unit (e.g. upazilla, mouza, etc.) as a primary reference, the study area is geometrised and uniformed (e.g. quadrates, transects, etc.) with the help of GIS technology to locate archaeological exhibits and to understand the town plan of Khalifatabad. Spatial analysis technique applied to Khalifatabad to find out the distribution of monuments and its mean centre, weighted mean centre, nearest neighbour analysis, median centre and distribution of monuments disposition. 
In this research paper, the above spatial analysis calculated the centre point of the Khalifatabad town is the mausoleum of Ulugh Khan Jahan and measured the nearest neighbour which cleared that the archaeological records was not developed in clustered way. So it has been concluded that the Khalifatabad town was developed in a planned way according to the contemporary human activities.
It has been concluded in this research on the basis of the spatial distribution analysis of monuments that the Khalifatabad might be developed as an almost planned town and it maintained a three consecutive phase during the flourishing period as an urban centre."